গত দেড় মাস ধরে সংক্রমণের ধারা অব্যাহত ভারতে, ৫৩ লক্ষ

সেপ্টেম্বরের গোড়া থেকেই তা ধারাবাহিক ভাবে হাজারের উপরে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুসারে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার জেরে মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ২৪৭ জনের।

দেশে করোনা চিত্র
দেশে করোনা চিত্র

৯০ হাজারের উপরেই থাকল দেশের দৈনিক করোনা আক্রান্ত সংখ্যা। দৈনিক করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা কমার কোনও লক্ষণ নেই দেশে। দৈনিক সংক্রমণ ৯৩ হাজারের উপরে। এর ফলে দেশে মোট করোনায় আক্রান্তের সংখ্য়া ছাড়িয়ে গিয়েছে ৫৩ লক্ষ ৮ হাজার ১৫। মৃত্যু হয়েছে আরও বারোশরও বেশি মানুষের। শনিবার সকালে প্রকাশিত মেডিক্যাল বুলেটিনে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৯৩,৩৩৭ জনের শরীরে মিলেছে করোনাভাইরাস। আক্রান্ত ও মৃত্যু সংখ্যার মধ্যেই আশার আলো কোভিড রোগীদের সুস্থ হয়ে ওঠা। এখনও পর্যন্ত দেশে মোট ৪২ লক্ষ ৮ হাজার ৪৩১ জন করোনার কবল থেকে মুক্ত হয়েছেন। অর্থাৎ মোট আক্রান্তের সাড়ে ৭৯ শতাংশই সুস্থ হয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে সুস্থ হয়েছেন ৯৫ হাজার ৮৮০ জন। এই মুহূর্তে দেশে অ্যাক্টিভ রোগীর সংখ্যা ১০ লক্ষ ১৩ হাজার ৯৬৪ জন। সেপ্টেম্বরের গোড়া থেকেই তা ধারাবাহিক ভাবে হাজারের উপরে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুসারে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার জেরে মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ২৪৭ জনের। এ নিয়ে দেশে মোট ৮৫ হাজার ৬১৯ জনের প্রাণ কাড়ল করোনাভাইরাস। এর মধ্যে মহারাষ্ট্রেই মারা গিয়েছেন ৩১ হাজার ৭৯১ জন। দ্বিতীয় স্থানে থাকা তামিলনাড়ুতে মোট মৃত্যু হয়েছে সাড়ে আট হাজার ছাড়িয়েছে। তৃতীয় স্থানে থাকা কর্নাটকে মৃতের সংখ্যা সাত হাজার ৮০৮।

বিশ্বজুড়ে ৩ কোটি ছাড়িয়ে গেল করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যাবৃদ্ধিতে কিছুটা লাগাম পরলেও তা থামার কোনও লক্ষণ নেই! ফলে, পজিটিভ রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। মৃতের সংখ্যাও সাড়ে ৯ লক্ষের কাছাকাছি। মোট আক্রান্তের নিরিখে আমেরিকা সবার আগে থাকলেও বিশেষজ্ঞদের উদ্বেগ বাড়াচ্ছে ইউরোপ। যেখানে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ফের বাড়ছে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা। সঙ্গে মৃত্যুও। প্রথম স্থানে থাকা আমেরিকায় মোট আক্রান্ত ৬৭ লক্ষ ২৩ হাজার ও তৃতীয় স্থানে থাকা ব্রাজিলে মোট আক্রান্ত ৪৪ লক্ষ ৯৫ হাজার।

পরিস্থিতি বুঝে ফের পূর্ণাঙ্গ লকডাউনের পথে যাওয়ার বিষয়ে ভাবনাচিন্তা শুরু করেছে ব্রিটেন। এই দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী এ দিন বলেন, ‘প্রতি আট-দশ দিনে হাসপাতালে আক্রান্তের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে যাচ্ছে। বোঝাই যাচ্ছে যে পরিস্থিতি নতুন করে জটিল হচ্ছে।’ ঘটনা হল। স্বাভাবিক জনজীবনে ফেরার প্রক্রিয়া শুরু করলেও সম্প্রতি একাধিক দেশের সঙ্গে আকাশপথে যোগাযোগ ফের নিয়ন্ত্রিত করে দিয়েছে ব্রিটেন। এ বার আলোচনা চলছে লকডাউন নিয়ে। যদিও, নিশ্চিত ভাবে এখনও কিছুই ঘোষণা হয়নি। এ দিকে, ইউরোপের বাইরে ইজরায়েল অবশ্য ইতিমধ্যেই পূর্ণাঙ্গ লকডাউনে ফিরে গিয়েছে। রাশিয়া-সহ আরও কয়েকটি দেশে নতুন করে মাথাচাড়া দিচ্ছে সংক্রমণ। তবে, শীর্ষে এখনও আমেরিকাই। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যদিও সম্প্রতি দাবি করেছেন যে, তাঁর দেশে করোনার এই বাড়বাড়ন্তের জন্য তাঁর প্রশাসন কোনও ভাবেই দায়ী নয়। বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, স্বাভাবিক জনজীবন শুরুর ফলেই নতুন করে বাড়ছে সংক্রমণ।

Source

ওয়েব ডেস্ক

Average Rating

5 Star
0%
4 Star
0%
3 Star
0%
2 Star
0%
1 Star
0%

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Next Post

'অ্যাডাল্ট ফিল্ম চালিয়ে নোংরাভাবে আমার শরীর ছুঁতে থাকে...', অনুরাগের বিরুদ্ধে

Sun Sep 20 , 2020
কেন এত বছর পর এই অভিযোগ আনলেন? কেন এতদিন চুপ করে ছিলেন? সেই উত্তরও দিয়েছেন অভিনেত্রী